এত নিকৃষ্ট নির্বাচন আগে দেখিনি: এমাজউদ্দীন

0

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেছেন, ‘নির্বাচন অনেক দেখেছি। কিন্তু এতো নিকৃষ্ট, ঘৃণ্য নির্বাচন আয়োজিত হতে আগে কখনো দেখিনি।’

তিনি বলেন, ‘এটাকে নির্বাচন করা বলে না। গায়ের জোরে ব্যালট পেপার বাক্সের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয়াই ছিল ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশ্য।’

মঙ্গলবার দুপুরে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নির্বাচন বর্জন সংবাদ সম্মেলনে এমাজউদ্দীন এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ও ছোট মন্ত্রীদের কথায় আমরা আগেই বুঝেছিলাম- এই পদ্ধতিতে ভোট কারচুপি করা হবে। আমাদের লক্ষ্য এভাবে ব্যর্থ হবে, তা ভবতেও পারিনি।’

নিজের ভোট দেয়া প্রসঙ্গে এমাজউদ্দীন বলেন, ‘আমি ঢাকা কলেজ কেন্দ্রে ভোট দিতে যাই। সেখানে একজন পুলিশ কর্মকর্তা সম্ভবত আমার ছাত্র হবে। সে আমাকে কেন্দ্রের ভেতরে নিয়ে গিয়ে ভোট দেয়ার ব্যবস্থা করে দেন। যখন বের হয়ে যাব, তখন তারা আমাকে যেভাবে বলল তাতে আমার এতদিনের শিক্ষকতা জীবন ব্যর্থ হয়েছে। আমি অর্ধশতাব্দী ধরে শিক্ষকতা করেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয়েছে- এরা ঢাকা কলেজের ছাত্রই হবে। ওই ছাত্ররা আমাকে বলেছে- আপনি কেন এসেছেন? পুড়িয়ে মানুষ মেরেছেন, আবার ভোট দিতে এসেছেন।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের এই উপদেষ্টা বলেন, ‘এই ধরনের তরুণদের দিয়ে আমরা কীভাবে সামনে এগোব। পরে সেই পুলিশ কর্মকর্তা এসে সামনের রাস্তা পরিষ্কার করে আমাকে যেতে সাহায্য করে। যাওয়ার সময় আমার গাড়িতে ঢিল মেরেছে, যাতে আমার গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

প্রবীণ এই রাষ্ট্রবিজ্ঞানী বলেন, ‘আমরা বহু আগেই আইনের শাসন, গণতন্ত্র ও ব্যক্তি অধিকার হারিয়েছি। ভেবেছিলাম এই নির্বাচনের মাধ্যমে তা কিছুটা হলেও উদ্ধার হবে। কিন্তু সরকার ও নির্বাচন কমিশনের কারণে তা ভুলুণ্ঠিত হয়েছে।’

Share.

Leave A Reply