নির্বাচনে ভোট ডাকাতি হচ্ছে

0

ঢাকা দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাসের স্ত্রী আফরোজা আব্বাস বলেছেন, নির্বাচনে ভোট ডাকাতি হচ্ছে। অন্তত ৪২টি কেন্দ্র থেকে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের এজেন্ট বের করে দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন কেন্দ্রে তার নেতাকর্মী-সমর্থকদের মারধর করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে ভোট শুরুর পর কয়েকটি কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে বেলা ১১টায় তিনি নিজ বাসায় সাংবাদিকদের এ অভিযোগ করেন।

আফরোজা আব্বাস বলেন, ‘বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে এজেন্ট ও ভোটারদের মারধর করে বের করে দেয়ার অভিযোগ আসছে তার কাছে। এ পর্যন্ত ৪২টি কেন্দ্রে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। নির্বাচন কোনোভাবেই সুষ্ঠু হচ্ছে না।’

এসময় মির্জা আব্বাসের বাসার বাইরে কয়েকশ’ নেতাকর্মীকে ‘অবৈধ নির্বাচন মানি না, মানব না-মানব না’ বলে শ্লোগান দিতে দেখা যায়। তবে ভোট বর্জন করবেন কিনা সে ব্যাপারে তিনি কিছু বলেননি।

সকালে ভোট শুরুর কয়েক মিনিটের মধ্যে আফরোজা আব্বাস যান ফকিরাপুলে। এসময় তিনি বলেন, ‘তার পুলিং এজেন্টদের কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না।

সকাল ১০টার দিকে সেগুনবাগিচা হাইস্কুল কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন‘এই নির্বাচন ভোট ডাকাতির নির্বাচন। সব কেন্দ্র থেকেই আমাদের এজেন্টদের জোর করে, অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে বের করে দেয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘লুৎফুন্নেছা একাডেমি কেন্দ্রে আমার ১০ এজেন্টদের মধ্যে ৯ জনকেই গেপ্তার করেছে পুলিশ। আমাদের এজেন্টদের ভোটকেন্দ্রে ঢুকতেই দেয়া হচ্ছে না।’

সিদ্ধেশ্বরী স্কুল কেন্দ্রে ভোট শূরু হওয়ার পূর্বের ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সিদ্ধেশ্বরীর কেন্দ্রের অবস্থা ভয়াবহ। সেখানে সকাল ৮টা ১০ মিটেই সব ভোট দেয়া হয়ে গেছে।’

বেলা ১১ টার দিকে আফরোজা আব্বাস সায়দাবাদ আরকে উচ্চ বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন। পরে সেখানে সাংবাদিকদের জানান, এই একটা কেন্দ্র ভালো পেলাম। এখানে পোলিং এজেন্টদের সঙ্গে কথা বলে মনে হয়েছে এখানে কাউকে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে না।

এ অবস্থায় নির্বাচন বয়কট করবেন কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘দলের প্রধানরা যে সিদ্ধান্ত নেবে তাই তাই হবে। আমি শুধু দেখে অভিযোগ করে গেলাম, অনেক জায়গায় অভিযোগ নেয়া হচ্ছে আবার অনেক জায়গায় অভিযোগ নেয়া হয়নি।’

এদিকে সেগুন বাগিচা স্কুল কেন্দ্র ঘুরে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের কোথাও কোনো এজেন্ট পাওয়া যায়নি। এ কেন্দ্রে শুধু ইলিশ প্রতীকের এজেন্ট পাওয়া গেছে। আর আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলরদের মধ্যে মুলা, (সংরক্ষিত) ঠেলাগাড়ি, ট্রাক্টর প্রতীকের এজেন্ট লক্ষ করা গেছে।

অন্যদিকে বেলা ১০টার দিকে একদল যুবলীগ কর্মী কেন্দ্রে আসে। তাদের গলায় যুবলীগ লেখা কার্ড ঝুলছিল। তারা বেশ কিছুক্ষণ কেন্দ্র টহল দেয়।

কেন্দ্রটিতে সকাল ১০টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত প্রতি বুথে গড়ে ২৫ থেকে ৩০টা করে ভোট পড়েছে বলে জানান দায়িত্বরত প্রিজাইডিং কর্মকর্তা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যবরেটরি স্কুল কেন্দ্রে সকাল ১০টার দিকে দেখা গেছে, সব বুথেই সাঈদ খোকনের ইলিশ প্রতীকের এজেন্ট থাকলেও কয়েকটি বুথে বিএনপি সমর্থিত মির্জা আব্বাসের মগ প্রতীকের কোনো এজেন্ট নেই। এই সময় কেন্দ্রের বাইরে সাঈদ খোকনের কর্মী বিশেষ করে ছাত্রলীগের কর্মীদের টহল দিতে দেখা গেছে। প্রকাশ্যে আব্বাসের কোনো সমর্থককে চোখে পড়েনি। কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি ছিল তুলনামুলক কম। তবে মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চলছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

ইলিশ মাছ প্রতীকের পোলিং এজেন্ট শরাফত আলী বলেন, ‘ভোটাররা স্বাধীনভাবেই ভোট দিচ্ছেন। ভোটকেন্দ্রে কোনো ঝামেলা হচ্ছে না। ভোটারদের কোনো ধরনের চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে মনে হয়না।’

Share.

Leave A Reply