লাকসাম ও তার পাশ্ববর্তী এলাকায় মাদকের সয়লাব বৃদ্ধি ॥ যুব সমাজ ধ্বংসের পথে

0

মোহাম্মদ উল্লাহ রানাঃ লাকসাম ও তার পাশ্ববর্তী এলাকায় মাদকের সয়লাব বৃদ্ধি। প্রশাসন বলছে র্নিমূলের চেষ্টা অব্যাহত, লাকসাম উপজেলা পৌর এলাকাসহ উপজেলার সবকটি ইউনিয়নে হাতেগণা ২-৪ গ্রাম বাদে প্রায় সব গ্রামেই এখন মাদক ও জুয়ার অভয়াশ্রম। হাত বাড়লে মিলে ফেন্সিডিল, হেরোইন, গাঁজা-মদ, ও ইয়াবা। যুব সমাজকে মাদক ও জুয়ার ভয়াবহ ছোবল থেকে রক্ষা করা বড়ই কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। সূত্রে জানায় কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার প্রায় ২০টি পয়েন্ট দিয়ে ঢুকছে বিভিন্ন ধরণের মাদকদ্রব্য। মাদক সরবরাহে কাজ করছে শতশত যুবক। জড়িয়ে পড়ছে নারী-পুরুষ এমনকি শিশুরাও। এসব মাদক প্রথমে চৌদ্দগ্রাম সীমান্ত সংলগ্ন বাড়ীতে বাড়ীতে জড়ো করা হয়। এরপর সুযোগ বুঝে চোরাচালান সিন্ডিকেটের সদস্যরা তা ছড়িয়ে দিচ্ছে বিভিন্ন উপজেলায়। দীর্ঘদিন ধরে চৌদ্দগ্রাম সীমান্তকে মাদক পাচারের নিরাপদ রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করছে একটি সংঘবদ্ধ সিন্ডিকেটের সদস্য। ইয়াবা, ফেন্সিডিল,মদ যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট ও গাঁজার চাহিদা বাড়ার কারণে চোরাচালানের সিন্ডিকেটের সদস্যরা ভারত, ত্রিপুরা, আখাউড়া ও সিজোরাম এলাকা থেকে কুটি কুটি টাকার বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্য এনে তাহা সুবিশাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে দিচ্ছে কুমিল্লা,লাকসাম,নাঙ্গলকোট, বাঙ্গড্ডাসহ কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে। চৌদ্দগ্রাম উপজেলার সুয়াগাজীসহ, কাকৈরতলা, বাঙ্গড্ডা হয়ে লাকসামের অলি-গলিতে এবং গ্রামের মিলছে ফেন্সিডিলসহ বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য, প্রতিদিনই আসক্ত হচ্ছে যুব সমাজ। পরিবার ও সমাজে বেড়ে যাচ্ছে ঝগড়া-বিবাদসহ নানা ধরণের অপকর্মের প্রবণতা। কয়েকজন অভিভাবক নাম না প্রকাশ শর্তে জানান প্রশাসনের নাকের ডগায় ও জ্ঞাতার্থেই চলছে এ ব্যবসা। তাই তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছেন।

Share.

Leave A Reply